Thursday,  Sep 20, 2018   3 PM
Untitled Document Untitled Document
সংবাদ শিরোনাম: •লক্ষ্মীপুরে মাদক ব্যবসায়ীর মুক্তির দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন, বিপাকে শিক্ষক •রামগঞ্জে মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীদের বলাৎকার; অভিভাবকগণ আতঙ্কে •রামগঞ্জে ক্ষুদে মেসি: ৪ ম্যাচে ৯ গোল! •পশুর সাথে শত্রুতা- অল্পের জন্য রক্ষা! •একজন যোগ্য শিক্ষকের হাত ধরে তৈরি হয় একজন সু-নাগরিক...... ড. আনোয়ার হোসেন খাঁন •রামগঞ্জে রমজান উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত •লক্ষ্মীপুরে রেড ক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত
Untitled Document

একজন সফল খামারী ডাক্তার বিল্লাল

তারিখ: ২০১৭-০৮-২৫ ১২:১১:৪৬  |  ৬৬৪ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

আমার লক্ষ্মীপুর ডট কম, রামগঞ্জ, রফিক উল্যাহ, ২৫ আগষ্টঃ আমাকে ডাক্তার বলবেন না, আমি এল এফ আই । ডাক্তার বললে আপনাকে মামলা খেতে হবে যদিও সবাই আমাকে ডাক্তার বিল্লাল হিসাবেই চেনে। হাসিমুখে বলছিলেন লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের রাম সিংহ বাড়ীর খামারী মোঃ বিল্লাল হোসেন।
২০০৫ সালে মিল্কভিটা রামগঞ্জ কেন্দ্রে এল এফ আই র চাকরি নেন বি এস সি পাশ বিল্লাল হোসেন। মিল্কভিটার বিভিন্ন সদস্যের বাড়ীতে গিয়ে গরুকে বীজ দেয়াই ছিলো তার কাজ। কিন্তু বীজ দেয়ার পাশাপাশি গরুর উপর বিভিন্ন বিষয়ে পড়ালেখা করেন নিজে নিজেই। অভিজ্ঞ ডাক্তারদের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে চালিয়ে যেতে থাকেন চিকিৎসা। আর এতেই আগ্রহ জন্মে নিজে একটি খামার করার। তাই ২০০৭ সালে মাত্র ২টি গাভী নিয়ে খামার শুরু করেন। বর্তমানে তার খামারে ছোট বড় ৩০ টি গাভী আছে যার বাজার মূল্য প্রায় ৭০ লক্ষ টাকা।
প্রতিদিন প্রায় ১০০ লিটার দুধ পান তিনি। উপজেলার বিখ্যাত মুসলিম সুইটস ও মিল্কভিটায় দেন এ দুধ। তার খামারে ছুটা কাজসহ সারাবছরই ৬ জন লোক কাজ করে। সব খরচ বাদ দিয়েও মাসে অর্ধলক্ষ টাকার উপরে আয় হয় তার।
তার এ কাজে নিবিড় সহযোগীতা করেন তার স্ত্রী পান্না আক্তার। মিল্কভিটার রামগঞ্জ উপজেলা খামারী পর্যায়ে পরপর তিনবার শ্রেষ্ঠ খামারী নির্বাচিত হয়ে পুরুষ্কার পান। এছাড়াও তার আছে মৎস্য খামার। বাড়ীতে ও বাড়ীর পাশের ৫টি পুকুরে মাছ চাষ করেও কয়েক লক্ষ টাকা আয় করেন বিল্লাল।
তার খামার দেখে আশেপাশের অনেকেই খামার গড়ে তুলেছেন। পাশর্^বর্তী গ্রামের আঃ ওহাব জানান, ডাঃ বিল্লালের খামার দেখে আমিও একটি খামার করেছি। বর্তমানে আমার খামারে ১৩ টি গরু আছে। আমিও অনেক লাভবান।
গরু পালবো! এ লজ্জা ঝেড়ে ফেলে যদি বিজ্ঞান ভিত্তিক ভাবে খামার গড়ে তোলা যায় তাহলে ২/৩ বছরেই দ্বিগুন লাভ করা সম্ভব বলে জানান, রামসিংহ বাড়ীর মৃত হাবিব উল্যাহর ছেলে ডাঃ বিল্লাল।
নিজের জ্বালানী চাহিদা পূরনের জন্য স্থাপন করেছেন বায়োগ্যাস। এতে তার অনেক টাকা সাশ্রয় হয়। ভবিষ্যতে অন্যদেরকে গ্যাস দিয়ে বাড়তি আয়ের ও চিন্তা আছে তার। সরকারী কোন সহযোগীতা পান না বলে জানালেন তিনি। তবে স্বল্প লাভে যদি আরও মূলধন পাওয়া যেত তাহলে এ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় খামার গড়ে তুলতে পারতেন বলে জানালেন বিল্লাল।
বিল্ললের এই সফল সাবলম্বী হওয়া অনুসরনীয় ও অনুপ্রেরনীয় হতে পারে বাংলাদেশের শিক্ষিত বেকার যুবকদের জন্য।   
নিউজ: রফিক উল্যাহ।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•নুশরাত হত্যার রহস্য উন্মোচন; রামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জকে সংবর্ধণা •স্বামীর চিকিৎসা ব্যয়ভার বহন করতে না পেরে স্বামীর মৃত্যু কামনা •বরগুনায় বর্বরতা... •রামগঞ্জে অধিকাংশ সড়কের বেহালদশা সাধারনের দুর্ভোগ চরমে
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

  • Top
    Untitled Document