Monday,  Dec 10, 2018   08:30 AM
Untitled Document Untitled Document
সংবাদ শিরোনাম: •লক্ষ্মীপুরে মাদক ব্যবসায়ীর মুক্তির দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন, বিপাকে শিক্ষক •রামগঞ্জে মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীদের বলাৎকার; অভিভাবকগণ আতঙ্কে •রামগঞ্জে ক্ষুদে মেসি: ৪ ম্যাচে ৯ গোল! •পশুর সাথে শত্রুতা- অল্পের জন্য রক্ষা! •একজন যোগ্য শিক্ষকের হাত ধরে তৈরি হয় একজন সু-নাগরিক...... ড. আনোয়ার হোসেন খাঁন •রামগঞ্জে রমজান উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত •লক্ষ্মীপুরে রেড ক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত
Untitled Document

উপ-সম্পাদকীয়.. স্বপ্নের ফুল

তারিখ: ২০১৭-০৮-২৩ ১৬:১৪:০১  |  ৫৩৫ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

আমিনুল ইসলাম
সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার, রামগঞ্জ

আমি যখন পথ চলি, মনে মনে ভাবি- পথিক আমি। পথের টানেই হয়তো জীবনের এই বিরামহীন ছুটে চলা।
আবার যখন বিভিন্ন বিদ্যালয়ে যাই, তখন মনে মনে শিশু হয়ে যাই..
মনে পড়ে একদিন, আমিও শিশু ছিলাম। আমারও সোনার শৈশব ছিলো, চঞ্চল মন ছিলো।
প্রাথমিক শিক্ষাকে বলা হয়, Reflecetive Education। কারন প্রাথমিক শিক্ষার প্রতিফলন ও প্রভাব জীবনব্যাপী। তাই এই শিক্ষার বিকাশ, বিস্তার ও বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজন- শিশু বান্ধব ও শিশুর বিকাশ সহায়ক পরিবেশ, সুন্দর ও মনোরম পরিবেশে বিদ্যালয়ের অবস্থান, প্রয়োজনীয় সংখ্যাক শ্রেণীকক্ষ, খেলার মাঠ, ছেলে ও মেয়েদের আলাদা টয়লেট, পাঠাগার, শিশুদের পঠন উপযোগী আনন্দময় বই, ছাত্র সংখ্যা অনুপাতে শিক্ষক, সময়ের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ শিখন পিরিয়ড, সুবিন্যাস্ত আসন।
অথছ বাংলাদেশের অধিকাংশ বিদ্যালয়ের চিত্র এমন নয়। শিশুদের চাহিদা, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির সার্বজনীন সনদের নাম-আর্ন্তজাতিক শিশু অধিকার সনদ।
এ সনদের ২৮ নম্বর ধারাতে বলা আছে ‍Right to Education” অর্থাৎ শিক্ষা গ্রহন শিশুর সুযোগ নয়, অধিকার।
এছাড়া বাংলাদেশে ১৯৯০ ইং সনে বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা আইন পাশ করা হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রাথমিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক। বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা আইনের একটি ধারায় আর্ন্তজাতিক শিশু অধিকার সনদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে বলা হয়েছে Each and Every Children have a right to achieve minimum level of primary education”
বর্তমানে বাংলাদেশে প্রাথমিক শিক্ষার মানোন্নয়নে দৃশ্যমান উদ্যেগ লক্ষনীয় । তদুপরি বাস্তবায়নে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের বিচ্যুতি।
প্রতিটা শিশুদের জীবনে আলাদা আলাদা গল্প রয়েছে। গল্পের শেষে কেউ চিকিৎসক হবে, কেউ প্রকৌশলী, কেউ শিক্ষক, কেউ পাইলট , কেউ বা সাংবাদিক হবে। কেউ বা আবার এমন কিছু হবে যা আমরা কল্পনাও করতে পারিনা। শিশুদের এসব গল্পের সুন্দর ও সফল পরিসমাপ্তির জন্য সকলের দায় রয়েছে। দায় রয়েছে পরিবারের, সমাজের ও সর্বপরি রাষ্ট্রের। প্রত্যেকের স্ববস্থান থেকে এ বিষয়ে সাধ্যের সব প্রচেষ্ঠা অব্যাহত রাখলেই কেবল এ স্বপ্ন বাস্তবায়ন সম্ভব।
“বিদ্যালয় মোদের বিদ্যালয়
এখানে সভ্যতারই ফুল ফোটানো হয়”

মালি আছে, বাগান আছে কিন্তু ফুল নাই.. এমন বাগান কল্পনা করতে ভীষন কষ্ট হয়।
তবুও শিশুদের নিয়ে সকল স্বপ্ন প্রত্যাশা উঁচু তারে বেঁধে রাখলাম।
সেদিন বেশি দুরে নয়, যেদিন শিশুদের সকল চাওয়া প্রাপ্তির রেখা ছুঁয়ে দিবে।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•একজন যোগ্য শিক্ষকের হাত ধরে তৈরি হয় একজন সু-নাগরিক...... ড. আনোয়ার হোসেন খাঁন •রামগঞ্জে কৃতি শিক্ষার্থী ও গুণীজন সংবর্ধণা •মায়ের কাছে চিঠি লিখেছে পানপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী •রামগঞ্জে ফতেহপুর মাদ্রাসা অধ্যক্ষকে পিটিয়ে আহত করলেন সভাপতি যুবলীগ নেতা •উপজেলা পর্যায়ে প্রথম নারী প্রধান শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ পেলেন শারমিন নয়ন •রামগঞ্জে আউগানখীল স: প্রা: বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ •রামগঞ্জ সাউধেরখীল স: প্রা: বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও পূরুস্কার বিতরনী অনুষ্ঠিত •শত প্রতিকূলতা ফেরিয়ে স্বমহিমায় ভাদুর উচ্চ বিদ্যালয় বাধাগ্রস্থ করতে একের পর এক মামলা...
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

  • Top
    Untitled Document