Monday,  Dec 10, 2018   08:14 AM
Untitled Document Untitled Document
সংবাদ শিরোনাম: •লক্ষ্মীপুরে মাদক ব্যবসায়ীর মুক্তির দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন, বিপাকে শিক্ষক •রামগঞ্জে মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীদের বলাৎকার; অভিভাবকগণ আতঙ্কে •রামগঞ্জে ক্ষুদে মেসি: ৪ ম্যাচে ৯ গোল! •পশুর সাথে শত্রুতা- অল্পের জন্য রক্ষা! •একজন যোগ্য শিক্ষকের হাত ধরে তৈরি হয় একজন সু-নাগরিক...... ড. আনোয়ার হোসেন খাঁন •রামগঞ্জে রমজান উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত •লক্ষ্মীপুরে রেড ক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত
Untitled Document

লক্ষ্মীপুরে হানাদার মুক্ত দিবসে র‌্যালি ও আলোচনাসভা

তারিখ: ২০১৬-১২-০৪ ১৬:১৬:৩১  |  ১০৪৭ বার পঠিত

0 people like this
Print Friendly and PDF
« আগের সংবাদ পরের সংবাদ»

নিজস্ব প্রতিবেদক:
লক্ষ্মীপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভার মধ্য দিয়ে (আজ) রবিবার হানাদার মুক্ত দিবস পালন করেছে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা। দুপুর ১২ টায় জেলা শহরের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয় থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে শহর প্রদক্ষিন করে। পরে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে আলোচনাসভায় মিলিত হয় তারা।
সভায় সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মাহবুবুল আলমের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এর সাবেক কমান্ডার মাষ্টার অনোয়ারুল হক, পুলিশ সুপার আসম মাহতাব উদ্দিন, পৌর মেয়র আবু তাহের, কাজলকান্দি দাস প্রমুখ।
হানাদার মুক্ত দিবস..
আজ ৪ঠা ডিসেম্বর লক্ষ্মীপুর হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে বীর মুক্তিযোদ্ধারা অস্ত্রশস্ত্রসহ প্রায় দেড় শতাধিক রাজাকারকে আটক করে লক্ষ্মীপুরে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। এর আগে নয় মাস যুদ্ধে পাকিস্তানি সেনারা জামায়াতের সহায়তায় এ দেশীয় দোসর রাজাকার আল-বদর লক্ষ্মীপুর জেলার পাঁচটি উপজেলায় ব্যাপক অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, ধর্ষণসহ হাজার হাজার নিরীহ জনসাধারণকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৩ বছরেও এসব হত্যাকান্ডের বিচারকাজ সম্পন্ন না হওয়ায় আজও সে স্মৃতি মনে করে প্রিয়জনদের হারানোর ঘটনায় শিউরে উঠেন অনেকে।
জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সূত্রে জানা যায়, ১৯৭১ সালে লক্ষ্মীপুরের বিভিন্নস্থানে মুক্তিবাহিনীর ১৭টি সম্মুখ যুদ্ধসহ ২৯টি দুঃসাহসিক অভিযান পরিচালিত হয়। এসব যুদ্ধে সৈয়দ আবদুল হালীম বাসু, মনছুর আহমদ, আবু ছায়েদসহ ৩৫ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। পাকহানাদার বাহিনীর হাতে জানা অজানা কয়েক হাজার নর-নারী নিহত হয়। এসব নারকীয় হত্যাযজ্ঞের আজও নীরব সাক্ষী হয়ে আছে জেলা শহরের বাগবাড়ি গণকবর, সার গোডাউনের পরিত্যক্ত টর্চারসেল, মাদাম ব্রীজ সংলগ্ন বধ্যভূমি, পিয়ারাপুর ব্রীজ, বাসুবাজার গণকবর, চন্দ্রগঞ্জস্থ নুরমিয়া মুন্সি বাড়ির গণকবর, রসুলগঞ্জ ও আবদুল্যাহপুর এবং রামগঞ্জ থানা সংলগ্ন বধ্যভূমি। এ ছাড়া যুদ্ধকালীন সময়ে রাজাকারদের সহযোগিতায় পাকহানাদার বাহিনীর হাতে শহীদ হয় মুক্তিযোদ্ধাদের স্বজনরাও।
৪ ডিসেম্বর প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল হায়দার চৌধুরী ও সুবেদার প্রয়াত আবদুল মতিনের নেতৃত্বে দেড় শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা একত্রিত হয়ে দালাল বাজার, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদি, শাঁখারী পাড়ার মিঠানীয়া খাল পাড় সহ বাগবাড়িস্থ রাজাকার ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে লক্ষ্মীপুরকে হানাদার মুক্ত করেন।
এ সময় প্রায় দেড় শতাধিক রাজাকারকে আটক করে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার করেন মুক্তিযোদ্ধারা। প্রকাশ্যে লক্ষ্মীপুর শহরে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়। বর্তমান সরকারের আমলে লক্ষ্মীপুরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দাবি করেন মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা।
৭১এর বীর মুক্তিযোদ্ধা লক্ষ্মীপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আবু তাহের বলেন, মহান স্বাধীনতার ৪২ বছরেও এসব হত্যাকান্ডের বিচারকার্য সম্পন্ন না হওয়ায় আজও সে স্মৃতি মনে করে প্রিয়জনদের হারানোর ঘটনায় শিহরে উঠেন অনেকে। মহান মুক্তিযুদ্ধের সেই নারকীয় হত্যাযজ্ঞের দোসর ও যুদ্ধাপরাধীদের দ্রুত বিচার দাবী করেছেন লক্ষ্মীপুরবাসী।


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

•রামগঞ্জে সোনালী ব্যাংক: ব্যবস্থাপকের অনিয়মে চরম ভোগান্তি পেনশনভোগীদের •রামগঞ্জে ভাদুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন •শিক্ষাখাতে জেলার শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন রামগঞ্জ উপজেলার •ঢাকাস্থ রামগঞ্জ উপজেলা সমিতির সভাপতি আনোয়ার খাঁন সাধারন সম্পাদক দেলোয়ার সাংগঠনিক পিন্টু •রামগঞ্জ করপাড়া কলেজের জন্য এলডিপি নেতার জমি দান •স্বাধীনতার ৪৭ বছর: স্বামীর পথ চেয়ে বৃদ্ধ স্ত্রী লতিফা এখনো কাঁদছেন •চিরনিদ্রায় সমাহিত জিয়াউল হক জিয়া
Untitled Document
  • সর্বশেষ সংবাদ
  • সবচেয়ে পঠিত
  • এক্সক্লুসিভ

  • Top
    Untitled Document